বাংলাদেশ-ভারত বিমান চলাচল শুরু

করোনা ভাইরাসের কারণে সাত মাসের বেশী সময় বন্ধ থাকার পর বুধবার থেকে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে পুনরায় বিমান চলাচল শুরু হয়েছে। ‘এয়ার বাবল’ চুক্তির আওতায় বুধবার সকাল ৯টা ৪৫ মিনিটে ঢাকার হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে কলকাতার উদ্দেশে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের নিয়মিত একটি বাণিজ্যিক ফ্লাইট উড্ডয়নের মধ্য দিয়ে দুইদেশের মধ্যে বিমান চলাচল শুরু হয়েছে।

এয়ার বাবল ব্যবস্থা অনুযায়ী, বাংলাদেশী বিমান- বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স, ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স এবং নভো এয়ার প্রতি সপ্তাহে ২৮টি ফ্লাইট পরিচালনা করবে। ভারতীয় পরিবহন এয়ার ইন্ডিয়া, ইন্ডিগো, ভিস্টারা, স্পাইসজেট এবং গোএয়ার সপ্তাহে সমান সংখ্যক ফ্লাইট পরিচালনা করবে। ভারতীয় পাঁচটি এয়ারলাইন্স দিল্লী-ঢাকা-দিল্লী, কোলকাতা-ঢাকা-কোলকাতা, চেন্নাই-ঢাকা-চেন্নাই এবং মুম্বাই-ঢাকা-মুম্বাই রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করবে। শুধু বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যেই এই এয়ার বাবল চুক্তির আওতায় ফ্লাইট পরিচালনা করা হবে, কোনো তৃতীয় দেশকে এর সঙ্গে যুক্ত করা হবে না। কোনো ট্রানজিট যাত্রীকেও এসব ফ্লাইটে নেয়া হবে না। ইতোমধ্যে ফ্রান্স, জার্মানী, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও মালদ্বীপের মতো কয়েকটি দেশের সাথে এ ধরনের এয়ার বাবল চুক্তি করেছে ভারত। বাংলাদেশের ক্ষেত্রে এধরণের চুক্তি প্রথম।

ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স বুধবার সকাল ১০টা ৩০ মিনিটে ঢাকা-চেন্নাই-ঢাকা ফ্লাইটও পুনরায় চালু করেছে। জাতীয় পতাকাবাহী বিমান বৃহস্পতিবার থেকে নয়াদিল্লীগামী ফ্লাইট যাত্রার মধ্য দিয়ে ভারতে যাত্রী পরিবহন শুরু করবে। এছাড়াও, বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স আগামী ১ ও ১৫ নভেম্বর থেকে যথাক্রমে কোলকাতা ও চেন্নাইয়ে তাদের বিমান পরিবহন পুনরায় চালু করবে।

কলকাতায় সোমবার ছাড়া সপ্তাহে ছয় দিন এবং চেন্নাইয়ে সপ্তাহে চারদিন সোমবার, বুধবার, শুক্রবার ও শনিবার ফ্লাইট পরিচালনা করবে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স। বিমান পরিবহন নভোএয়ারও তাদের কোলকাতা ফ্লাইট পুনরায় চালু করার প্রস্তুতি নিয়েছে।

আপনার মতামত জানান

দয়া করে আপনার মন্তব্য লিখুন!
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন